এইচটিএমএল শিখতে যা করবেন

ওয়েব পেইজ তৈরি কাস্টমাইজ কিংবা ওয়েবসাইটের জন্য নতুন আপ্লিকেশন তৈরি করতে কোডিং প্রয়োগ করতে হয়। আর প্রাথমিকভাবে কোডিং এর জন্য এইচটিএমএল জানা থাকা আবশ্যক। সহজ কথায় বললে ওয়েব ডিজাইন কিংবা ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর জগতে যেতে সর্বপ্রথম এইচটিএমএল শিখতেই হবে । আর তাই ওয়েবসাইট তৈরি করতে এইচটিএমএল শেখার বিকল্প নেই।

কম্পিউটার চালনার প্রাথমিক জ্ঞান থাকলেই এইচটিএমএল শেখা যায়। একটি সাধারণ কম্পিউটার হলেই এইচটিএমএল এর কাজ করা যায়। উইন্ডোজ কম্পিউটার দিয়েই শুরু যাক। এইচটিএমএল শেখা শুরু করার পূর্বে ফাইল এক্সটেনশন, কোড এডিটর ও ব্রাউজারের মত কিছু বিষয় সম্পর্কে ধারণা থাকা প্রয়োজন। ফাইল এক্সটেনশন হলো ফাইল এর পরিচয় বা ধরণ। কোন ফাইলের নামের শেষের ডট এর পরে অবস্থিত তিনটি বা চারটি বর্ণকে ফাইল এক্সটেনশন বলে। এক্সটেনশন এর কিছু উদাহরণ দেয়া হল: সফটওয়্যার (.EXE), ইমেজ (.PNG/.JPEG/.JPG), ভিডিও (.MP4), পিডিএফ (.PDF), টেক্স ডকুমেন্ট (.TXT) ইত্যাদি।

এইচটিএমএল ফাইল তৈরি করার জন্য প্রথমেই একটি টেক্সট ডকুমেন্ট তৈরি করে তার এক্সটেনশনের .TXT এর পরিবর্তে .HTML বসিয়ে সেভ করতে হবে। অনেক কম্পিউটারে ফাইল এক্সটেনশন হাইড করা থাকে। আনহাইড করতে কোন একটি ফোল্ডারে ঢুকে ছবিতে দেখানো পদ্ধতি অনুসরণ করে ফাইল নেম এক্সটেনশন চেকমার্ক করে দিতে হবে।

সিস্টেম: উইন্ডোজ ১১

HTML ফাইল এডিট করতে একটি টেক্সট এডিটর প্রয়োজন হবে । প্রতিটি কম্পিউটার এ ডিফল্টভাবে নোটপ্যাড দেওয়া থাকে । তবে, অ্যাডভান্সড টেক্সট এডিটর যেমন; নোটপ্যাড প্লাস প্লাস, অ্যাডোবি ড্রিমওয়েভার, সাবলাইম টেক্সট অথবা ভিজ্যুয়াল স্টুডিও কোড এগুলোর যেকোন একটি ব্যবহার করা উত্তম। কারণ, সাধারণ নোটপ্যাড এবং অ্যাডভান্সড টেক্সট এডিটরগুলোর মধ্যে বেশ পার্থক্য রয়েছে যা ববহার করলে বোঝা যায়।

আর সেই সাথে HTML ফাইল ওপেন করতে ও প্রিভিউ দেখতে একটি ইন্টারনেট ব্রাউজারের প্রয়োজন হবে। প্রতিটি কম্পিউটারে ডিফল্টভাবে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্রাউজারটি ইন্সটল করা থাকলেও মোজিলা ফায়ারফক্স, গুগল ক্রোম, অপেরা ইত্যাদি ব্রাউজার ইন্সটল করে নিলেই ভালো।

Leave a Comment

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।